সদ্য সংবাদ
Home / সিরাজগঞ্জ / উল্লাপাড়া / নির্বাচনী কন্ট্রোল রুমে পাল্টে গেল ভোটের ফল: আদালতে স্বতন্ত্র প্রার্থী

নির্বাচনী কন্ট্রোল রুমে পাল্টে গেল ভোটের ফল: আদালতে স্বতন্ত্র প্রার্থী

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিরাজগঞ্জ

যমুনাপ্রবাহ.কম: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার বাঙালা ইউনিয়নের পশ্চিম সাতবাড়ীয় এবতেদায়ী মাদ্রাসা ভোট কেন্দ্রে মোট ভোটার সংখ্যা ২৫৮৯। গত ২৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিত তৃতীয় দফায় ইউপি নির্বাচনে এ কেন্দ্রটিতে ভোট পড়েছে ২২৫০। বৈধ ভোটের সংখ্যা ১৮৯৪ ও বাতিল দেখানো হয়েছে ৩৫৬ ভোট। ভোট গণনা শেষে প্রিজাইডিং অফিসার ও পূর্ব দেলুয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুল মাজেদ যে ফলাফল ঘোষণা করেন তাতে স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু হানিফ মোটর সাইকেল প্রতিকে পেয়েছেন ১২৮৫ ভোট এবং আওয়ামীলীগ প্রার্থী সোহেল রানা নৌকা প্রতিকে পেয়েছেন ৩৬৯ ভোট।

অথচ রিটার্নিং অফিসার স্বাক্ষরিত পূর্ণাঙ্গ ফলাফলে ওই কেন্দ্রে মোটর সাইকেল প্রতিকে ১২৮৫ ভোটের স্থলে দেখানো হয়েছে ৫৪৪ ভোট এবং নৌকা প্রতিকে ৩৬৯ এর স্থলে ১১১০ ভোট দেখানো হয়েছে। সেখানে মোট বৈধ ভোটের সংখ্যা ১৮৯৪ এর স্থলে দেখানো হয় ১৯৬৮ ও অবৈধ ৩৫৬ এর স্থলে ২৮২ দেখানো হয়েছে।

ঠিক একই ভাবে দক্ষিণ গাইলজানী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্র প্রিজাইডিং অফিসার স্বাক্ষরিত ফলাফলে দেখা যায় স্বতন্ত্র প্রার্থী মুক্তিযোদ্ধা কেফায়েত উল্লাহর ঘোড়া প্রতিকে ১৭২৫ ও নৌকা প্রতিকে ৩০৯ ভোট পড়েছে। রিটার্নিং কর্মকর্তা স্বাক্ষরিত পূর্ণাঙ্গ ফলাফলে সম্পূর্ণ উল্টে গিয়ে নৌকা প্রতিকে ১৭২৫ এবং ঘোড়া প্রতিকে ৩০৯ ভোট দেখানো হয়েছে।

আবার মালিপাড়া সর:প্রা: বিদ্যালয় ভোটকেন্দ্রে মোটর সাইকেল প্রতিকে ৯৩৩ ভোট, ঘোড়া প্রতিকে ৩৯১ ও নৌকা প্রতিকে পড়েছে ৪০৩ ভোট। রিটার্নিং কর্মকর্তার মূল ফলাফল শিটে মোটর সাইকেল প্রতিকে ২৬৩, ঘোড়া প্রতিকে ৯০ ও নৌকা প্রতিকে ১৩৬৯ ভোট দেখানো হয়েছে।

সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার বাঙালা ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনী ফলাফল এভাবেই পাল্টে দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আবু হানিফের। ওই ফলাফল বাতিল ও ভোট পূণ:গননার দাবীতে উচ্চ আদালতে আবেদন করেছেন তিনি। 

এছাড়াও ফলাফল বাতিল, গেজেট প্রকাশ বন্ধ, ভোট পূণ:গননা ও ব্যালটপেপার যাচাই-বাছাইয়ের দাবী জানিয়ে  প্রধান নির্বাচন কমিশনার, সিরাজগঞ্জ জেলা নির্বাচন অফিসার, উল্লাপাড়া উপজেলা নির্বাচন অফিসার ও রিটার্নিং কর্মকর্তা (উদুনিয়া-বাঙালা) বরাবরও আবেদন করেছেন।

নির্বাচনী কন্ট্রোল রুমে ভোটের ফলাফল সম্পূর্ণ পাল্টে ফেলা হয়েছে দাবী করে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আবু হানিফ বলেন, সবগুলো কেন্দ্রের ফলাফলে আমি ৪৩৩ ভোটে বিজয়ী হয়েছি। তিনটা কেন্দ্রের রেজাল্ট টেম্পারিং করা হয়েছে। দক্ষিণ গাইলজানি কেন্দ্রে ১৭২৫ ভোট পেয়েছে ঘোড়া আর ৩০৯ ভোট পেয়েছে নৌকা। এ ফলাফল সম্পূর্ণ উল্টে ফেলা হয়েছে। মালিপাড়া ও পশ্চিম সাতবাড়ীয় কেন্দ্রেও রেজাল্ট পাল্টে দেয়া হয়েছে। আমি প্রধান নির্বাচন কমিশনার বরাবর আবেদন করেছি। আদালতের দ্বারস্থও হয়েছি। গেজেট প্রকাশ বন্ধ রেখে ভোট পূণ গননা করে আমাকে চেয়ারম্যান হিসেবে ঘোষণা দেয়ার দাবী জানিয়েছি।

এদিকে প্রিজাইডিং অফিসার স্বাক্ষরিত ফলাফলের সাথে রিটার্নিং কর্মকর্তার ফলাফলের গড়মিলের বিষয়ে জানতে চাইলে মালিপাড়া কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার ও বড় পাঙ্গাসী সবুজ সংঘ কলেজের সহকারী অধ্যাপক মো. খলিলুর রহমান বলেন, কেন্দ্রের ঘোষিত ফলাফলে আমার স্বাক্ষর নেই। ফলাফল শিটে তার সীলমোহরযুক্ত স্বাক্ষর এলো কিভাবে জানতে চাইলে তিনি ফোন কেটে দেন। পরবর্তীতে বার বার ফোন করলেও তিনি রিসিভ করেননি।

পশ্চিম সাতবাড়ীয় কেন্দ্রের প্রিজাইডিং অফিসার ও পূর্ব দেলুয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল মাজেদ বলেন, আমার ওই কেন্দ্রে সম্পূর্ণ শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ হয়েছে। রিটার্নিং কর্মকর্তা ঘোষিত পূর্ণাঙ্গ ফলাফলের সাথে গড়মিলের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, এসব বিষয়ে আমার সাথে ইন্টারফেয়ার করবেন না-এসব বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারবো না।

রিটার্নিং কর্মকর্তা ও উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তা মোতালেব হোসেন জানান, কন্ট্রোল রুমে ইউএনও, ডিজিএফআই, এনএসআই, র‌্যাব ও মিডিয়ার লোকজন উপস্থিত ছিলেন। প্রিজাইডিং অফিসার সরাসরি আমার কাছে এসে বসে নিজে ক্যালকুলেটার করে সব কিছু মিলিয়ে স্বাক্ষরিত কপি জমা দিয়ে চলে গেছে। প্রিজাইডিং অফিসার স্বাক্ষরিত কপি আমাকে যেটা দিছে ওইটা দেখে আমি রেজাল্ট শীট তৈরি করেছি। এর বাইরে-ভেতরে আক কি হয়েছে সেটা আমার জানার বিষয়ও না এবং জানিও না। কেন্দ্রে প্রিজাইডিং অফিসার রেজাল্ট কি দিছে-কি দেয় নাই, ওটা কার স্বাক্ষর সেটা আমি বলতে পারবো না। যেহেতু বিষয়টা আদালতে গড়েছে, আদালতের মাধ্যমেই নিস্পত্তি হোক।  

জেলা নির্বাচন অফিসার মো. শহীদুল ইসলাম জানান, রোববার (৫ ডিসেম্বর) একটি লিখিত অভিযোগ আমরা পেয়েছি। ২৮ নভেম্বর নির্বাচন হয়েছে। এখন এ বিষয়ে আমাদের কিছু করার নেই। অভিযোগকারীকে নির্বাচনী ট্রাইব্যুনালে যাবার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। প্রসঙ্গত, তৃতীয় দফার ইউপি নির্বাচনে সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার বাঙালা ইউনিয়নে আওয়ামীলীগ মনোনীত প্রার্থী মো. সোহেল রানাকে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। নৌকা প্রতিকে তার ভোট দেখানো হয় ৯৭১৮। নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আবু হানিফের (মোটর সাইকেল) ভোট দেখানো হয়েছে ৫৭১৪ ভোট। তবে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আবু হানিফের দাবী প্রকৃত ফলাফলে তিনি ৪৩৩ ভোটে জয়লাভ করেছেন।

About jamuna

আবার চেষ্টা করুন

কাজিপুরে আ.লীগ নেতা শহীদ সরোয়ারের উপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন-বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিরাজগঞ্জ যমুনাপ্রবাহ.কম: সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শহীদ সরোয়ারের উপর সন্ত্রাসী হামলার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *