সদ্য সংবাদ
Home / দূর্ঘটনা / তাড়াশে সুতি জাল উচ্ছেদে বিক্ষোভ মিছিল

তাড়াশে সুতি জাল উচ্ছেদে বিক্ষোভ মিছিল

উপজেলা প্রতিনিধি || যমুনাপ্রবাহ.কম

প্রকাশ কাল: ১৫৪৪ ঘন্টা, জুলাই ৫, ২০২১

তাড়াশ:  পানি না থাকলেও যত্রতত্র সুতিজালের বেড়া থাকার কারণে চলনবিল অঞ্চলের জনগন বন্যার পানিতে ভাসছে। এতে করে চলনবিল অধ্যুষিত সিরাজগঞ্জের তাড়াশ উপজেলার তালম ইউনিয়নের ১১টি গ্রামসহ পাশ্ববর্তী নাটোর জেলা সিংড়া উপজেলার অন্তত ১০টি গ্রামের মানুষকে দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে এদিকে সুতিজালে উচ্ছেদের জন্য বিক্ষোভ করেছে ভুক্তভোগীরা।  সোমাবার ( ৫ জুন) সকালে সরেজমিনে এসব এলাকায় গেলে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগের চিত্র দেখা যায়। কলামুলা ভাদাই ব্রীজ থেকে শুরু করে তালম নাগোড়পাড়া পর্যন্ত ভদ্রাবতী নদীর মাঝে মাঝে ১১টি সুুতি জালের বাধ। এই সুতি জালের বাধে পানি প্রবাহিত হতে না পেরে এলাকার জমিসহ রাস্তাঘাট ডুবে গেছে। বার বার সুতি জাল মালিকদের সমস্যার কথা বললেও তারা কোন কর্নপাত করেন নাই। সুতি জাল মালিকগন প্রভাবশালী হওয়ায় এলাকার খেটে খাওযা জনগন তাদের বিরুদ্ধে কিছু বলতে পারছেন না বলে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
পানিতে বসতবাড়ি ভেঙ্গে যাওয়া এক ভুক্তভোগী পরিবারের প্রধান রেজাউল করিম জানান, প্রায় ১ মাস যাবত এই পানিতে আমার ঘরবাড়ী ডুবে থাকায় দেওয়াল ভেঙ্গে পরেছে। আমি আমার পরিবারের সদস্যদের নিয়ে অনেক কষ্টে আছি। এ ছাড়াও আমার মতো আরও অনেক বাড়ি ঘর পানিতে ডুবে আছে।
কলামুলা গ্রামের বেল্লাল হোসেন বলেন, এই পানির কারনে আমাদের আবাদী জমি নষ্ট হয়েছে। সামনে রোপা ধান রোপন করবো। আমরা কোন ভাবেই বিচন চারা দিতে পারছি না। এই পানি যদি না নামে তাহলে রোপা ধান রোপন করা হবে না। আমরা না খেয়ে মরবো।

কোলাকুপা গ্রামের ফিরোজ উদ্দিন বলেন, সুতি জালের বাধায় পানি নামতে না পেরে রাস্তাঘাট ডুবে গেছে। পারাপারে কলা গাছরে ভেলা তৈরী করে পরিবারের সদস্যরা পার হচ্ছি। এভাবে আর কতদিন চলতে হবে জানি না।
ওই এলাকার মোস্তাব আলী বলেন, বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী চলনবিলে এখন গরু ,বাছুর,ছাগল,ভেড়া ঘুরে ঘুরে ঘাস খাচ্ছে আর আমাদের উচু এলাকায় পানিতে ডুবে হাবুডুবু খাচ্ছি। পানি বের করতে হলে প্রসাশনের হস্তক্ষেপে সুুতি জাল উচ্ছেদ করতে হবে। তবেই আমরা রক্ষা পাবো।

এই বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আব্বাস-উজ-জামান বলেন, কতিপয় ১০ থেকে ১১জন লোকের সুবিধা দেখতে গিয়ে আমি তো বৃহৎ স্বার্থ ক্ষতি হতে দেব না। এলাকায় এই সুতি জালের কারনে অনেক ক্ষতি হচ্ছে। এটা অতি তাড়াতাড়ি উচ্ছেদ করতে হবে।
উপজেলা মৎস্য অফিসার মশগুল আজাদ বলেন, বিষয়টি আমি দেখছি। সুতি জাল দিয়ে মাছ ধরা সম্পন্ন নিষেদ।সুতি জাল উচ্ছেদের অভিযান চলমান আছে।

About jamuna

আবার চেষ্টা করুন

সিরাজগঞ্জে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় শিশুসহ নিহত ২

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিরাজগঞ্জ যমুনাপ্রবাহ.কম: সিরাজগঞ্জের কামারখন্দ ও শাহজাদপুরে পৃথক দুটি সড়ক দুর্ঘটনায় একজন শিশুসহ দুজনের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *