সদ্য সংবাদ
Home / জলবায়ু ও পরিবেশ / কুয়াশা ও শৈত প্রবাহে বিপর্যস্ত সিরাজগঞ্জের জনজীবন

কুয়াশা ও শৈত প্রবাহে বিপর্যস্ত সিরাজগঞ্জের জনজীবন

নিজস্ব প্রতিবেদক || যমুনাপ্রবাহ.কম

সিরাজগঞ্জ: একদিকে ঘণ কুয়াশার চাঁদরে ঢাকা জনপদ তার সাথে বইছে মৃদ শৈত প্রবাহ। পাশাপাশি আকাশ থেকে পড়ছে শিশির কণাও। সব মিলিয়ে তীব্র শীতে কাঁপছে সিরাজগঞ্জ শহর। বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে খেঁটে খাওয়া সাধারণ মানুষের জীবন।

সোমবার (১৮ জানুয়ারি) সকাল ১১টা পর্যন্ত সিরাজগঞ্জের কোথাও সূর্যের আলো দেখা যায়নি। কাজের সন্ধানে শ্রমজীবি মানুষগুলো বাইরে বের হলেও শীতের দাপটে নাকাল হয়ে পড়েছে। শীতের তীব্রতায় শরীর জুবুথুবু। এ অবস্থায়  কাজ করতে পারছেন না তারা। সকালে বাড়ি থেকে রিকশা নিয়ে বের হয়ে ১০ ও ১৫ টাকার দুটি ভাড়া মেরেছেন পঞ্চাশোর্ধ হবিবর রহমান। এরপর শীতের তীব্রতায় আর রিকশায় পা রাখতে পারছেন না তিনি।

শহরের নিউ মার্কেট এলাকায় কয়েক রিকশাচালক আগুন জ্বালিয়ে শরীর গরম করছিলেন। রিকশা দাঁড় করিয়ে সেখানেই বসে পড়লেন হবিবুর রহমান। তার মত অবস্থা আমিনুল ইসলাম, সোবাহান, ইসমাইল, সাইফুলসহ অনেক রিকশা চালকেরই। শীতের পোশাক গায়ে জড়িয়ে আসলেও স্বাভাবিক কাজকর্ম করতে পারছেন না তারা। তাই সবাই মিলে আশপাশ থেকে কাগজ কুড়িয়ে বসেছেন আগুন পোহাতে।

এসব রিকশা চালকরা বলেন, কুয়াশার সাথে সাথে আকাশ থেকে গুড়ি গুড়ি বৃষ্টির মতো পড়ছে। আর প্রচণ্ড শীতে হাত-পা জমে আসছে। এ কারণে রিকশা চালাতে কষ্ট হচ্ছে। তারপরও ধীরে ধীরে গাড়ি চালাচ্ছি। কিছুক্ষণ রিকশা চালানোর পর হাত-পা অবশ হয়ে যায়। এ কারণে আগুন জ্বালিয়ে শরীর গরম করতে হচ্ছে।

রমজান আলী নামের এক রিকশা চালক বলেন, শীতে যতই কষ্ট হো রিকশা চালাইতেই হইবো। ঘরে বউ-ছওয়ালপাল আছে। কাম কইর‌্যা বাজার না নিয়্যা গেলে সবাইকে না খাইয়া থাইকতে অইবো। আবার জমার ট্যাহাও দিতে অইবো।

ব্যাটারি চালিত অটোরিকশা চালকেরাও এদিক সেদিক ঘুরে বেড়িয়ে ভাড়া যোগাড় করতে পারছেন না। অনেকেই শীতের পোশাক গায়ে জড়িয়ে নিজ গাড়ীর মধ্যে জুবুথুবু হয়ে বসে রয়েছেন।

শীতের কারণে শহরে লোকজনের উপস্থিতি বেশ কম। ব্যবসায়ীরা দোকান খুলে ঠায় বসে থাকলেও দেখা মিলছে না গ্রাহকের।

এম এ মতিন সড়কস্থ ইলেকট্রিক ব্যবসায়ী শহিদুল ইসলাম, একই রোডের মাইদুল ইসলাম ও স্টেশনারী ব্যবসায়ী বাবু বলেন, সকাল থেকেই দোকানে বসে রয়েছি। গ্রাহকের দেখা নেই। দুরের মানুষগুলোও দেখা যাচ্ছে না। তীব্র শীত তো আছেই তার উপর খোলা দোকানে হিমেল বাতাস ঢুকে কাবু করে ফেলছে।

তাড়াশ কৃষি আবহাওয়া পর্যবেক্ষণ অফিসের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. জাহিদুল ইসলাম জানান, গত তিনদিন ধরে তাপমাত্রা কমছে। গত শনিবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ১১ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রোববার ১২ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং আজ সোমবার ১২ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। গত দুদিনের তুলনায় আজ তাপমাত্র বাড়লেও কুয়াশার সাথে হালকা বাতাস ও শিশির পড়ার কারণে শীতের তীব্রতা একটু বেশি।

তিনি বলেন আরও দুদিন এমন অবস্থা থাকতে পারে। বুধবার ও বৃহস্পতিবার বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে আগামী সপ্তাহ থেকে আবহাওয়া স্বাভাবিক হবে।

About jamuna

আবার চেষ্টা করুন

সিরাজগঞ্জে পঞ্চকবির গানে গানে বসন্তবরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক || যমুনাপ্রবাহ.কম সিরাজগঞ্জ : বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে সিরাজগঞ্জে বসন্ত উৎসব পালন করেছে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *