সদ্য সংবাদ
Home / গুরুত্বপূর্ণ / কাজী নজরুল ইসলামের ৪৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

কাজী নজরুল ইসলামের ৪৫তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ


যমুনাপ্রবাহ.কম

সিরাজগঞ্জ: এক হাতে মম বাঁশের বাঁশরী আর হাতে রণ তূর্য্য। তিনি কখনো দ্রোহের দাবানল ছড়িয়ে বঞ্চিত, নিপিড়ীত মানুষের কথা বলেছেন, কখনো গেয়েছেন সাম্যের গান, আবার কখনো প্রিয়ার প্রেমে ব্যাকুল হয়ে সুরের মুর্ছনা ছড়িয়ে দিয়েছেন। তিনিই আমাদের জাতীয় কবি, প্রেম, দ্রোহ, সাম্য ও মানবতার কবি কাজি নজরুল ইসলাম।

শুক্রবার (২৭ আগষ্ট, বাংলা ১২ ভাদ্র) বাংলা সাহিত্য ও সঙ্গীতাঙ্গণকে সু-উচচ মর্যাদার আসনে প্রতিষ্ঠিত করা মহান কবি কাজি নজরুল ইসলামের ৪৫তম তম মৃত্যুবার্ষিকী। ১৯৭৬ সালের ২৯ আগস্ট (বাংলা ১৩৮৩ সালের) এই দিনে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (তৎকালীন পিজি হাসপাতাল) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

‘মসজিদেরই পাশে আমায় কবর দিও ভাই/ যেন গোর থেকে মুয়াজ্জিনের আজান শুনতে পাই’-মসজিদের পাশে সমাহিত করার জন্য এই গানের মধ্য দিয়ে তিনি তার সুহৃদ ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের অনুরোধ করে গেছেন। তা মনে করে কবিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের পাশে কবিকে সমাহিত করা হয়। কাজী নজরুল ছিলেন বাংলা সাহিত্যর অনন্য রূপকার। কবিতার পাশাপাশি সঙ্গীতেও তিনি সৃষ্টি করেছিলেন অনন্যতা। রাগ-রাগিণী আর শব্দের ব্যঞ্জনায় গান ও কবিতার মাধ্যমে বাংলা সাহিত্যকে যেভাবে সমৃদ্ধ করেছিলেন, ঠিক একইভাবে উপন্যাসে জীবনকে তুলে এনেছেন, তীক্ষ্ণ দৃষ্টিতে সমাজের ক্ষয়ে যাওয়াকে স্পষ্ট করেছেন।

কবিতার দীপ্ত উচ্চারণে তিনি যেমন দ্রোহের আগুন ছড়িয়ে দিয়েছিলেন ঠিক একইভাবে প্রিয়ার প্রতি তার নিজের ভালোবাসার কথাও তুলে ধরেছিলেন গান আর কবিতায়। দ্রোহের আগুনে জ্বলে উঠে কবি যেমন লিখেছিলেন ‘মম এক হাতে বাঁকা বাঁশের বাঁশরী আর হাতে রণতূর্য’ ঠিক তেমনভাবে প্রিয়ার প্রতি ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশে তিনিই লিখেছিলেন প্রেমের অনন্য গান ‘মোর প্রিয়া হবে এসো রানী, দেবো খোঁপায় তারার ফুল’।

কাজী নজরুল ছিলেন একাধারে কবি, সাহিত্যিক, সঙ্গীতজ্ঞ, সাংবাদিক, রাজনীতিবিদ এবং সৈনিক। দারিদ্র্যের কারণে মাত্র ১০ বছর বয়সেই পরিবারের দায়িত্ব নিতে হয় কবিকে। ভারতীয় সেনাবাহিনীতে কিছুদিন কাজ করার পর তিনি পেশা হিসেবে বেছে নেন সাংবাদিকতা। শুধু কলমেই দ্রোহের আগুন জ্বালাননি, দেশমাতৃকার জন্য অস্ত্র হাতে যুদ্ধও করেছেন সৈনিক কবি। নিজের লেখনীর মাধ্যমে অসাম্প্রদায়িকতার বাণী ছড়িয়ে দিয়েছেন আজীবন আপসহীন কবি।

তৎকালীন ব্রিটিশ সরকারকে উৎখাতের আন্দোলনে তার সৃষ্টি ‘বিদ্রোহী’ কবিতা দাবানলের মতো ছড়িয়ে পড়ার পর স্বাধীনতা আন্দোলন দানা বেঁধে উঠার কারণে কবিকে গ্রেফতার করা হয়। ১৯২৩ সালের ৭ জানুয়ারি নজরুল বিচারাধীন বন্দি হিসেবে আত্মপক্ষ সমর্থন করে এক জবানবন্দি প্রদান করেন। চিফ প্রেসিডেন্সি ম্যাজিস্ট্রেট সুইনহোর আদালতে দেওয়া ওই জবানবন্দি বাংলা সাহিত্যে রাজবন্দীর জবানবন্দি নামে বিশেষ সাহিত্যিক মর্যাদা লাভ করেছে।

১৯২২ সালে প্রকাশিত হয় নজরুলের বিখ্যাত কাব্যগ্রন্থ ‘অগ্নিবীণা’। এর মাধ্যমে বাংলাকাব্য জগতে নতুন দিনের সূচনা হয়। এ কাব্যগ্রন্থের ‘প্রলয়োল্লাস’, ‘বিদ্রোহী কামাল পাশা’, ‘শাত-ইল-আরব’, ‘আগমনী’, খেয়াপারের তরণী’সহ প্রতিটি কবিতাই বাংলা কাব্যে নতুন বাঁক সৃষ্টি করেছিল। সাহিত্যের সকল সৃজনশীলতাকে ছড়িয়ে সঙ্গীতেও নিজের শ্রেষ্ঠত্বের ছাপ রাখেন জাতীয় কবি। প্রায় চার হাজার গান রচনা ও সুর করে এদেশের সঙ্গীতাঙ্গনের জন্য এনেছেন বিরল সম্মান ও খ্যাতি।

ভারত সরকারের অনুমতি নিয়ে ১৯৭২ সালের ২৪ মে স্বাধীন বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কবি নজরুলকে সপরিবারে বাংলাদেশে নিয়ে এসে তাকে জাতীয় কবির মর্যাদা প্রদান করেন। বাংলা সাহিত্যে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ ১৯৭৪ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কবিকে সম্মানসূচক ডি. লিট উপাধি প্রদান করে। ১৯৭৬ সালে বাংলাদেশ সরকার কবিকে বাংলাদেশের নাগরিকত্ব দেয়। একই বছরের ২১ ফেব্রুয়ারি একুশে পদকে ভূষিত করা হয় কবিকে।


জাতীয় কবির ৪৫তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বিভিন্ন সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠন নানা কর্মসূচি হাতে নিয়েছে। নানা আয়োজনে দেশের বিভিন্ন সামাজিক ও সাংষ্কৃতিক সংগঠন প্রিয় কবিকে স্মরণ করছে।

About jamuna

আবার চেষ্টা করুন

বঙ্গমাতা সাংস্কৃতিক জোটের উদ্যোগে শহীদ শেখ রাসেল দিবস উদযাপন

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিরাজগঞ্জ যমুনাপ্রবাহ.কম: নানা আয়োজনের মধ্য দিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *