সদ্য সংবাদ
Home / করোনা সংবাদ / করোনা উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হওয়া রোগীর ওয়ার্ডে স্বজনদের ভীড়

করোনা উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হওয়া রোগীর ওয়ার্ডে স্বজনদের ভীড়


নিজস্ব প্রতিবেদক || যমুনাপ্রবাহ.কম

সিরাজগঞ্জ: সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালে করোনা উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হওয়া রোগীদের ওয়ার্ডে (আইসোলেশন) ভীড় করছে স্বজনরা। এতে হাসপাতালের নার্স ও স্টাফ ছাড়াও অন্যান্য রোগী এবং সেবা নিতে আসা মানুষের মধ্যে করোনা ছড়িয়ে পড়ার আশংকা বাড়ছে। গতকাল শনিবার (১৭ এপ্রিল) বেলা সাড়ে ১২টার দিকে হাসপাতালের নতুন ভবনের তিন তলার আইসোলেশন ওয়ার্ডে গিয়ে রোগীদের পাশে স্বজনদের ব্যাপক ভীড় দেখা যায়। ওই ওয়ার্ডে দায়িত্বরত নার্স এবং ওয়ার্ড বয়ও ভীড় দেখে আতংকিত হয়ে পড়েছেন। একই অবস্থা হাসপাতালের অন্যান্য আইসোলেশন বেডগুলোতেও।
স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করে এসব রোগীর স্বজনরা হাসপাতালের বিভিন্ন স্থানে অবাধে যাতায়াত করায় করোনা ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে হাসপাতালে সেবা নিতে আসা মানুষগুলোও। এদিকে রোগীর স্বজনদের ভীড় কোনভাবেই কমানো সম্ভব হচ্ছে না বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। ওই ওয়ার্ডে দায়িত্বরত ওয়ার্ড বয় লাল মিয়া বলেন, করোনা সন্দেহে এখানে রোগীরা ভর্তি হয়েছে। এই রোগীদের কাছে আসা রিক্স হলেও স্বজনেরা কোন কিছু না মেনে ভীড় করছে। আমরা বার বার বললেও আমাদের কথা তারা শুনছেন না। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হাসপাতালের এক নার্স বলেন, এসব রোগীদের সেবা দিতে এসে আমরাও ঝুঁকির মধ্যে রয়েছি। তারপরও বাধ্য হয়ে দায়িত্ব পালন করছি।
এ বিষয়ে সিরাজগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জেনারেল হাসপাতালের তত্ববধায়ক ডা. মো. সাইফুল ইসলাম বলেন, প্রতিটি ওয়ার্ডেই আইসোলেশন বেড রয়েছে। যে কোন রোগীর কোভিড-১৯ সন্দেহ হলেই অন্যান্য রোগীদের থেকে আলাদা অর্থা আইসোলেশনে পাঠানো হচ্ছে। আইসোলেশন ওয়ার্ডগুলোতে রোগীর স্বজনদের ভীড় কোনক্রমেই ঠেকানো যাচ্ছে না। তারা কারও কথাই শোনেনা। এরা ঝুঁকির বিষয়টি বুঝতেও চায় না। মানুষ যদি নিজে থেকে সচেতন না হয় তাহলে কিভাবে তাদের বোঝানো যাবে।

About jamuna

আবার চেষ্টা করুন

সিরাজগঞ্জে অস্ত্র-গুলিসহ শীর্ষ ছিনতাইকারি গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিরাজগঞ্জ যমুনাপ্রবাহ.কম: সিরাজগঞ্জে ছিনতাই, বিস্ফোরক আইনসহ বিভিন্ন অভিযোগে দায়ের করা একাধিক মামলার আসামী …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *