সদ্য সংবাদ
Home / রাজনীতি / আওয়ামীলীগ / এমপির আত্মীয় জায়ামাত নেতা চেয়ারম্যান প্রার্থী, আওয়ামীলীগে ক্ষোভ

এমপির আত্মীয় জায়ামাত নেতা চেয়ারম্যান প্রার্থী, আওয়ামীলীগে ক্ষোভ

জহুরুল ইসলাম (বেলকুচি প্রতিনিধি)

যমুনাপ্রবাহ.কম: সিরাজগঞ্জের বেলকুচি উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে স্থানীয় এমপি আব্দুল মমিন মন্ডলের আত্মীয় ও জামায়াত নেতার চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়াকে কেন্দ্র করে দলের মাঝে ক্ষোভ ও উত্তেজনা বিরাজ করছে।

বুধবার (৩ নভেম্বর) সন্ধ্যায় আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে এমপি মমিন মন্ডল ও দৌলতপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এবং দলের মনোনীত প্রার্থী আশিকুর রহমান লাজুক বিশ্বাসের সাথে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়। এক পর্যায়ে উভয় পক্ষের সমর্থকদের মধ্যে কথা-কাটাকাটি ও উত্তেজনা সৃষ্টি হলে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করে।

উপজেলা আওয়ামীলীগের একাধিক নেতাকর্মীর সাথে কথা বলে জানা যায়, এমপি আব্দুল মমিন মন্ডলের কাছের আত্মীয় উপজেলা জামায়াতের শীর্ষ পর্যায়ের নেতা রফিকুল্লাহ খন্দকার। তিনি ২০১৪ সালের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে জামায়াতের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বীতাও করেছিলেন। এবার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তিনি প্রার্থী হয়েছেন। তিনি নিজেকে শক্ত প্রার্থী দাবী করে উপরের গ্রিণ সিগন্যাল রয়েছে বলে প্রকাশ্যে বলে বেড়াচ্ছেন। এ নিয়ে দলের মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে।  

বুধবার সন্ধ্যায় দলীয় কার্যালয়ে জেল হত্যা দিবস উপলক্ষে আয়োজিত  আলোচনা সভার শেষে দৌলতপুর ইউনিয়নে আ.লীগ প্রার্থী আশিকুর রহমান লাজুক বিশ্বাস দুটি কথা বলার সুযোগ চান। সুযোগ না দেয়ায় সভার প্রধান অতিথি আব্দুল মমিন মন্ডল এমপির কাছে গিয়ে বিষয়টি বলতে গেলেই উত্তেজনা সৃষ্টি হয়।

দৌলতপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি আলতাফ হোসেন বলেন, রফিকুল্লাহ খন্দকারের গ্রাম গোপালপুর এমপি মমিন মন্ডলের মামার বাড়ি। তারা মামাতো-ফুপাতো ভাই। তিনি চেয়ার‌ম্যান পদে মনোনয়ন জমা দেয়ার পর প্রকাশ্যে বলে বেড়াচ্ছেন, উপরের গ্রীণ সিগন্যাল পেয়েই আমি নির্বাচন করছি।

আ.লীগের প্রার্থী আশিকুর রহমান লাজুক বিশ্বাস জানান, জেলহত্যা দিবসে উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা শেষে আমরা নৌকা মনোনীত প্রার্থীরা  দুটি কথা বলার সুযোগ চেয়ে ছিলাম। কিন্তু সে সুযোগ আমরা পাইনি। পরে আমি এমপি মহাদয়ের কাছে গিয়ে বলি আমার ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী আপনার নিকট আত্মীয়। এ কথা বলায় এমপি সাহেব আমার উপরে রেগে যান। পরে আমার সমর্থকরা উত্তেজিত হলে এমপি আ’লীগ কার্যালয়ের দোতলায় চলে যাযন, আর আমি সমর্থকদের নিয়ে চলে আসি।

উপজেলা আ’লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি দেলখোশ আলী প্রমানিক বলেন, জেলহত্যা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা শেষে চেয়ারম্যান প্রার্থী লাজুক বিশ্বাস দু মিনিট কথা বলতে চাইলে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়।

বেলকুচি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা জানান, দলীয় কার্যালয়ে জেলহত্যা দিবসের আলোচনা শেষে লাজুক বিশ্বাসের সাথে স্থানীয় এমপি মহাদয়ের সাথে কিছু কথা বলাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনি।

এ ব্যাপারে সংসদ সদস্য আব্দুল মমিন মন্ডলের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

About jamuna

আবার চেষ্টা করুন

কাজিপুরে আ.লীগ নেতা শহীদ সরোয়ারের উপর হামলার প্রতিবাদে মানববন্ধন-বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক, সিরাজগঞ্জ যমুনাপ্রবাহ.কম: সিরাজগঞ্জের কাজিপুরে উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক শহীদ সরোয়ারের উপর সন্ত্রাসী হামলার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *